সত্যজিৎ ব্যানার্জি, বারুইপুর; পড়াশোনার নোট জেরক্স করে বান্ধবীর সাথে দশম শ্রেণীর ছাত্রী নাবালিকা বাড়ি ফেরার পথে রাস্তায় বাইক নিয়ে পথ আটকে তার বান্ধবীকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়ে নাবালিকা ছাত্রীকে হাত ধরে টানতে টানতে বাড়িতে তুলে নিয়ে গিয়ে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ উঠলো অভিযুক্ত প্রতিবেশী বছর ২৪ এর যুবকের বিরুদ্ধে।

ঘটনাটি ঘটে বারুইপুর থানার নড়িদানা শান্তিনগর এলাকায় বুধবার দুপুরে। অভিযোগ, অভিযুক্ত যুবক ওই ছাত্রীকে মুখে হাত চাপা দিয়ে তার বাড়িতে নিয়ে গিয়ে ঘর বন্ধ করে ছাত্রীর হাত বেঁধে দিয়ে মুখে মদের বোতল ঢেলে দিয়ে যৌন নির্যাতন করে। নাবালিকা ছাত্রী চিৎকার করলে মদের বোতল ভেঙে পেটে ঢুকিয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। বাড়িতে অভিযুক্ত যুবকের মা ও দিদি জেনে, দেখেও কোন প্রতিবাদ করেনি বলে অভিযোগ ছাত্রীর। ওই ছাত্রীকে অসংলগ্ন অবস্থায় অভিযুক্তর বাড়ি থেকে উদ্ধার করে তার পরিবারের লোকজন ও বাসিন্দারা। ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে বারুইপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে ওই নাবালিকা ছাত্রীর মা। বারুইপুর থানার পুলিশ অভিযোগ পেয়েই তৎপরতার সাথে অভিযুক্ত ২৪ বছরের যুবক সুরজ কুরনি কে তার সাউথ গড়িয়ার বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে। অভিযুক্তকে শুক্রবার দুপুরে বারুইপুর মহকুমা আদালতে তোলা হয়। ওই ছাত্রীর শারীরিক পরীক্ষার জন্য বারুইপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

ওই নির্যাতিতা ছাত্রীর বাড়ি বারুইপুরের নড়িদানা এলাকায়। স্থানীয় অমিয়বালা বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী সে। ঘটনা প্রসঙ্গে নির্যাতিতা ছাত্রীর মা অসীমা পান্ডে জানান, বুধবার দুপুরে আমার মেয়ে পড়াশোনার নোট জেরক্স করে তার বান্ধবীর সাথে বাড়ি ফিরছিল। পথে বাইক নিয়ে তাদের পথ আটকায় প্রতিবেশী যুবক। আমার মেয়েকে হাত ধরে টেনে বান্ধবীকে ধাক্কা দিয়ে রাস্তায় ফেলে দিয়ে সে তাদের ঘরে আমার মেয়েকে নিয়ে চলে যায়। এর পর বন্ধ ঘরে মেয়ের হাত বেঁধে, মুখে মদ ঢেলে দিয়ে যৌন নির্যাতন করে। এমনকি মদের বোতল ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকিয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় সে। তার মা আর দিদি এই কাজে উৎসাহ দেয়। পরে মেয়ের বান্ধবী বাড়ি গিয়ে জানালে লোকজন নিয়ে এসে মেয়েকে অসংলগ্ন অবস্থায় উদ্ধার করি। এদিকে পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে অনুমান, মেয়েটির সাথে ছেলেটির সম্পর্ক ছিল। মেয়েটি একটা মোবাইল কিনে দিতে চেয়েছিল ছেলেটির কাছে। সেই নিয়ে ঝামেলাও হয়েছিল। প্রাথমিক শারীরিক পরীক্ষায় কোন চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ঘটনার তদন্ত চলছে, তবেই বিষয় পরিষ্কার হবে।

Video Source & Copyrights: Pradip Kumar Singha

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here