সত্যজিৎ ব্যানার্জি, বারুইপুর; দক্ষিন ২৪ পরগনার সোনারপুরে কয়েকদিন আগে জাল ওষুধের সাথে হাতুড়ে চিকিৎসকের গ্রেপ্তারের পর এবার বারুইপুরে উদ্ধার হল প্রচুর জাল ওষুধ। ১৪ বস্তা, ৬ পেটি জাল ওষুধ উদ্ধার করল বারুইপুর থানার পুলিশ। এই জাল ওষুধের ব্যাপারে অনেক দিন ধরেই বারুইপুর থানায় জানিয়ে আসছিল একটি ওষুধের মার্কেটিং সংস্থা। সেই মতোই শুক্রবার সকাল ১১ টার পর বারুইপুরের গোবিন্দপুর বাইপাসের কাছে নজর রাখছিল বারুইপুর থানার পুলিশের বিশেষ টিম ও এক ওষুধের মার্কেটিং সংস্থার তদন্তকারী সংস্থার লোকজন। এক ভ্যান চালককে বাইপাস ধরে গোবিন্দপুরের পোটর মোড় থেকে আসতে দেখে পুলিশ ভ্যানটিকে আটকায়। ভ্যানে বেশ কয়েকটি বস্তায় ও পেটিতে রাখা ছিল ওষুধ। পেটিতে রাখা ওষুধের বোতলে তারিখ, ওষুধের জাল করা লেবেল, যা দেখে সন্দেহ হয় পুলিশের। এর পর বারুইপুর থানায় ভ্যান চালককে জিজ্ঞাসাবাদের পর পুলিশের বিশেষ টিম তল্লাশিতে বেরোয় বারুইপুর, সোনারপুরের বিভিন্ন এলাকায়। এর পর বারুইপুর থানার পুলিশের বিশেষ টিম সোনারপুরে গিয়ে সোনারপুর থানার পুলিশকে নিয়ে রথতলা এলাকায় দীপঙ্কর মণ্ডলের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার করে ডাবর কোম্পানির জাল লেবেল এঁটে পুদিন হারার বোতল, কাফ সিরাপ, ওয়েল। যা বাজারে বিক্রি করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল জাল লেবেল এঁটে।

পুলিশের তদন্তকারী অফিসার জানান, এর ফল হত মারাত্মক। মানুষের জীবনহানি হতে পারত। পুলিশ জানায়, রথতলার বাসিন্দা দীপঙ্কর মণ্ডলের নামে একটা কেস আরম্ভ হয়েছে। যদিও সে পলাতক। তার বাড়িতেই এই জাল কারবারের বোতল রাখা ছিল। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। এই চক্রে কারা জড়িত তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Leave a Reply