সত্যজিৎ ব্যানার্জি, বারুইপুর; বাড়ির পাশে বাগানের আম গাছে এক সরকারি কর্মীর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়াল। মৃতের নাম ফরেজ আলি মোল্লা (৫২)। ঘটনাটি ঘটে বারুইপুরের ফুলতলা পিয়ালী এলাকায় শনিবার সকালে। পরিবারের অভিযোগ, মৃতদেহের পিঠে আঘাতের চিহ্ন আছে, তাকে মেরে ফেলা হয়েছে। বারুইপুর থানার পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে। পুলিশ আত্মহত্যা না খুন তা তদন্ত করে খতিয়ে দেখছে।

ঘটনা প্রসঙ্গে জানা যায়, বাসন্তীর মসজিদ বাটির আদি বাসিন্দা ফরেজ আলি মোল্লা ক্যানিং ১ নং ব্লকের ইটখোলা গ্রাম পঞ্চায়েতের কর্মী। সরকারি কাজের সুবাদে তিনি তার স্ত্রী আর ছেলেকে নিয়ে বারুইপুরের ফুলতলা পিয়ালীতে এক বাড়ীতে ভাড়া থাকতেন। এদিনের ঘটনা প্রসঙ্গে তার ভাই ইরান মোল্লা জানায়, বাবা মারা যাওয়ার জন্য ১৭ -১৮ বছর আগে দাদা সরকারি চাকরি পান। দাদা চাকরি পাওয়ার পর আমাদের কিছু সাহায্য করতেন। এটা বৌদি মানতে পারেনি। বেশ কিছুদিন ধরে দাদার ব্যাঙ্কের পাশ বই, এটিএম কার্ড বৌদি কেড়ে নিয়েছিল। যা গত বুধবার দাদা আমাকে জানিয়েছিল। এমনকি দাদাকে খেতে দেওয়া হত না। তার ভাই ইরান মোল্লা আরও জানায়, দাদা তার ছেলের মোটর বাইক কেনার জন্য দেনা করেছিল কিছু লোকের কাছে। এই দেনার জন্য বৌদি দাদাকে অপমান করত, আমার মনে হয় বৌদি আর ভাইপো মেরে দিয়েছে। বারুইপুর থানার পুলিশ মৃতদেহের পাশ থেকে একটি সুইসাইড নোটও উদ্ধার করেছে। তাতে দেনার কথা উল্লেখ করা আছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে অনুমান, দেনার জন্য আত্মহত্যা করেছে এই ব্যক্তি।

Leave a Reply