সত্যজিৎ ব্যানার্জি, বারুইপুর; চারদিকে গাছ কেটে নেওয়া হচ্ছে, বন্যপ্রাণীরা খাবার পাচ্ছে না। বৃক্ষকে ভালোবাসতে হবে। গাছ না থাকলে শান্তি পাবেন না। এর পাশাপাশি বারুইপুর পৌরসভা ও পঞ্চায়েত সমিতিকে অনুরোধ বাড়ির নকশা অনুমোদনের সময় যাতে পর্যাপ্ত জায়গায় ৭টি গাছ বাসিন্দারা বসান। যদি এটা সুনিশ্চিত হয়, তবেই নকশার অনুমোদন দেবেন। এমন ভাবেই সতর্ক করলেন বিধানসভার অধ্যক্ষ তথা বারুইপুর পশ্চিমের বিধায়ক বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবার দুপুরে দক্ষিণ ২৪ পরগনা বন বিভাগের পরিচালনায় বারুইপুরের রবীন্দ্র ভবনে বনমহোৎসব অনুষ্ঠানের উদ্বোধনে এসে এ কথা বলেন অধ্যক্ষ।

এদিন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা বন বিভাগের আধিকারিক তৃপ্তি সাহা, বারুইপুর পৌরসভার পৌরপ্রধান শক্তি রায় চৌধুরী, উপ-পৌরপ্রধান গৌতম দাস, বারুইপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি আফসার আলি লস্কর, সহ সভাপতি শ্যামসুন্দর চক্রবর্তী প্রমুখ। এদিন অধ্যক্ষ আরও বলেন, ছাত্র-ছাত্রীদের বাড়িতে গাছের চারা বসাতে হবে। বিশ্ব উষ্ণায়নের হাত থেকে বাঁচতে বৃক্ষ রোপণের প্রয়োজন। ছাত্র-ছাত্রীদের এগিয়ে আসতে হবে বৃক্ষ সংরক্ষণে।

এদিন অনুষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে মেহগনি, জাম, নারকেল, আমলকি গাছ তুলে দেন বন বিভাগের আধিকারিক তৃপ্তি সাহা। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা গাছ বাঁচানোর সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য একটি নাটক মঞ্চস্থ করে। জেলা বন বিভাগের আধিকারিক তৃপ্তি সাহা জানান, ছাত্র-ছাত্রীদের যুক্ত করে সচেতনতার অনুষ্ঠান পালিত হল বনমহোৎসবে। প্রত্যেক রেঞ্জে ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়েই এই বনমহোৎসব পালন করা হবে। এদিন জেলার বিভিন্ন রেঞ্জে বন বিভাগের আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here